কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ১৬২ তম জন্মদিন পালন

0
350

 পিরোজপুর এর জনপ্রিয় সাহিত্য পত্রিকা সাহিত্যশৈলী’র আয়োজনে বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ১৬২ তম জন্মদিন পালিত হয়েছে। আজ ২৫ বৈশাখ ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, ৮ মে ২০২৩ খি. সোমবার পিরোজপুর জেলা সদরস্থ বাবুই পাঠাগার মিলনায়তনে এ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। কবি ও দার্শনিক দেবাশীষ মৃধা সাহিত্য সংস্কৃতি সংসদ এর মূখপত্র “সাহিত্যশৈলী” এর উপদেষ্টা সম্পাদক কবি ও সাহিত্যিক মাসুম খান এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাবুই সামাজিক উন্নয়ন সংস্থা ও বাবুই পাঠাগারের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক এবং সাহিত্যশৈলী’র উপদেষ্টা সম্পাদক কবি হাছিবুর রহমান হাছিব। এসময় অন্যান্যদের মধ্যে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সাহিত্যশৈলী পত্রিকার সম্পাদক মণ্ডলীর গুরুত্বপূর্ণ সদস্য যথাক্রমে কবি অনির্বাণ চক্রবর্তী, কবি দিলীপ কুমার মিস্ত্রি, কবি সনজয় কুমার রায়, কবি মৃনাল কান্তি রায় প্রমুখ। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের জন্মজয়ন্তীর এ অনুষ্ঠানে প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত থেকে কবিগুরুর সৃষ্টিকর্মের উপর তথ্যবহুল আলোচনা করেন সাহিত্যশৈলী’ র সহযোগী সম্পাদক কবি দেবনাথ মন্ডল।

অনুষ্ঠানে কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের উপর বিশেষ প্রবন্ধ পাঠ করেন কবি ও ঔপন্যাসিক অনির্বাণ চক্রবর্তী।

এসময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত কবি-সাহিত্যিকবৃন্দ রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কবিতা আবৃত্তি করে শোনান। অনুষ্ঠানটির সঞ্চালনায় ছিলেন সাহিত্যশৈলী’র অন্যতম সহযোগী সম্পাদক কবি সমর কৃষ্ণ হালদার। দার্শনিক ও কবি দেবাশীষ মৃধা সাহিত্য সংস্কৃতি সংসদ এর প্রতিষ্ঠাতা ও সাহিত্যশৈলী পত্রিকার সম্পাদক প্রাণকৃষ্ণ বিশ্বাস তাঁর বক্তব্যে বলেন রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের জন্মজয়ন্তী পালন তথা তার জীবন দর্শন নিয়ে আলোচনা, আবৃত্তি, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান সমকালে খুব একটা দেখা যায় না। যে রবীন্দ্রনাথ বাংলা সাহিত্যকে বিশ্বদরবারে সুপ্রতিষ্ঠিত করে গেছেন, বাংলা ভাষাকে বিশ্ব মর্যাদার আসনে অলংকৃত করে গেছেন আমরা দিন দিন সেই মহান ব্যক্তিত্বের অবদানের প্রতি তার অমর সৃষ্টিকর্মের প্রতি অনীহাগ্রস্ত হয়ে যাচ্ছি। বিশ্বকবির অহিংস ও মানবতাবাদী দৃষ্টিভঙ্গি সমাজ সংস্কারের মত মহান অবদান এর কথা না ভেবে আমরা তাকে ধর্মীয় দৃষ্টিকোন থেকে তাকে বিশেষ কোন গোষ্ঠীর মধ্যে ফেলে দিয়ে তার বিশালত্বকে ছোট করার হীন প্রচেষ্টা করতে গিয়ে নিজেরাই বিশ্বসভায় ছোট হয়ে যাচ্ছি। অথচ আমাদের ছেলেবেলায় আমরা দেখেছি রবীন্দ্র ও নজরুল জয়ন্তী উদযাপন হয়েছে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে, শহরে ও গ্রাম পর্যায়ে। সাহিত্যশৈলী সম্পাদক আরও বলেন আমাদের দেশের যুব সমাজ আজ নানা অপরাধমূলক কাজে লিপ্ত হয়ে বিপথগামী। রবীন্দ্র- নজরুল চর্চাই পারে যুব সমাজকে সঠিক পথের সন্ধান দিতে সৃষ্টিশীল জগতে ফিরিয়ে আনতে। বর্তমান সরকারের প্রতি ধন্যবাদ জানিয়ে তিনি বলেন সরকার প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে রবীন্দ্র ও নজরুল জয়ন্তী উদযাপন এর জন্য নির্দেশনা দিয়েছেন। এ মহতী উদ্যোগ নি:সন্দেহে প্রশংসার দাবি রাখে। আবৃত্তি ও আলোচনা অনুষ্ঠান শেষে সাহিত্যশৈলী এর বাংলা নববর্ষ ও ঈদ সংখ্যার মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠিত হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here